বিবাহ অনুষ্ঠানে যাওয়া হলো না ৭ম শ্রেণির ছাত্রী কাকন রানীর (১২)। কাকন রাণী পাগলা পাইলট বালিকা বিদ্যালয়ের ৭ম শ্রেণির ছাত্রী।

দুই বোন এক ভাই বাবা ও মাকে নিয়ে বড় বোনের ননদের বিয়ের অনুষ্ঠানে যোগদান করার জন্য নারায়নগঞ্জ জেলার ফতুল্লা থানার পাগালা এলাকার ধোপাতিতা গ্রামের স্থায়ী বাসিন্দা। কাকন রাণীর বাবার নাম তারক নাথ রাজ বংশী। বৃহস্পতিবার (৪ অক্টোবর) বিকাল সাড়ে ৫টায় এই ঘটনা ঘটে।

বৃহস্পতিবার (৪ অক্টোবর) বিবাহ অনুষ্ঠানে যোগদানের জন্য মুক্তারপুর হয়ে বালিগাও রওয়ানা দেন অটো রিক্সা যোগে। বালিগাও বাজারে যেতে না যেতেই অটো গাড়ির মটোরের সাথে ওড়না পেঁচিয়ে গলায় ফাঁশ লেগে যায় কাকন রাণীর। কেউ বুঝে উঠার পূর্বেই কাকন রাণী মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়ে।

অটো ড্রাইভার তাদেরকে একটি সিএনজিতে উঠিয়ে দিয়ে পালিয়ে যায়। পরবর্তীতে মুন্সিগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে আসলে কর্তব্যরত ডাক্তার তাকে মৃত্যু ঘোষণা করে। তখন মা-বাবা ও ভাই বোনের আহাজারীতে আকাশ বাতাশ ভারী হয়ে উঠে। তখন বিষাদময় পরিবেশের সৃষ্টি হয়।

অটো গাড়িটির ড্রাইভারের পিছনে একটি ফাঁকা জায়গা থাকে। অধিকাংশ অটো গাড়ির এই ফাঁকা জায়গাটা বন্ধ করলেও বেশ কিছু গাড়ির এই জায়গাটি ফাঁকা। এই ফাঁকা জায়গাটাই হলো অটোতে উঠা যাত্রীদের মরণ ফাঁদ। এ ধরনের গাড়ি যতগুলো রয়েছে সবগুলো গাড়ি বন্ধ করে দেয়া উচিত।

এই ফাঁকা জায়গা বন্ধ করবে অন্যথায় এই ধরনের গাড়ীর বিরুদ্ধে মোবাইল কোর্ট করে জরিমানা আদায় করার দাবী করছেন যাত্রীরা। এদেরকে আইনের আওতায় না আনা হলে এভাবে অকালেই অনেক মানুষকে জীবন দিতে হবে।

হাসপাতালে উপস্থিত সকলেরই দাবী এই ধরনের অটো কোন রোডে যাতে চলতে না পারে সে ব্যাপারে দ্রুত প্রশাসন ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *