ভারতের জম্মু-কাশ্মীরে আকাশসীমা লঙ্ঘন করে ঢুকে পড়ে পাকিস্তানের একটি হেলিকপ্টার।

সোমবার স্থানীয় সময় দুপুর সোয়া ১২টার দিকে পুঞ্চ সেক্টরে এ ঘটনার পর সীমান্তে তীব্র উত্তেজনা দেখা দেয়। হেলিকপ্টারটিকে গুলি করে নামানোর চেষ্টা করে ভারতীয় সেনারা। তবে তার আগেই ফের পাকিস্তানের আকাশসীমায় ঢুকে পড়ে হেলিকপ্টারটি।

সীমান্ত চুক্তি অনুযায়ী, ভারত-পাক সীমান্তে নিয়ন্ত্রণ রেখার এক কিলোমিটারের মধ্যে কোনো হেলিকপ্টার ঢুকতে পারে না। ১০ কিলোমিটারের মধ্যে আসতে পারে না কোনো বিমান। জম্মু-কাশ্মীর সীমান্তেও দুই দেশ এই নিয়ম মেনে চলে। তবে এদিন ভুল করে, নাকি পূর্ব পরিকল্পনা করেই হেলিকপ্টারটি ভারতীয় আকাশ সীমায় ঢুকেছিল, তা এখনো স্পষ্ট নয়। পাকিস্তানের তরফ থেকেও এ ব্যাপারে কোনো বিবৃতি দেওয়া হয়নি।

ভারতীয় সেনারা জানান, দুপুর ১২টা ১৩ মিনিটে হঠাৎ পাকিস্তান সেনাবাহিনীর একটি হেলিকপ্টার দেখা যায় পুঞ্চের গুলপুর সেক্টরে। নিয়ন্ত্রণরেখার ভিতরে প্রায় ২৫০ মিটার ঢুকে পড়ে হেলিকপ্টারটি। সাদা রঙের ওই হেলিকপ্টারটি দেখেই চূড়ান্ত সতর্কতা নেয় ভারতীয় সেনাবাহিনী। সঙ্গে সঙ্গে হেলিকপ্টার লক্ষ্য করে গুলি চালাতে শুরু করেন ভারতীয় সেনারা। প্রায় পাঁচ মিনিট ভারতের আকাশে চক্কর কাটার পর পাকিস্তানের আজাদ-কাশ্মীর সীমায় ফিরে যায় হেলিকপ্টারটি।

ভারতীয় সেনারা জানান, হেলিকপ্টারটি বিধ্বস্তে ভারী কোনো অস্ত্র ব্যবহার করা হয়নি।

ভারতের সেনাবাহিনীর অবসরপ্রাপ্ত মেজর জেনারেল আশবানি সিবাক বলেন, ‘পাকিস্তান আগ্রাসী মনোভাব দেখাচ্ছে। আকাশসীমা লঙ্ঘন খুব গুরুতর ব্যাপার। হেলিকপ্টারটি ভারতীয় সীমার কত ভেতর এসেছিল এবং কতক্ষণ ছিল, তা দেখতে হবে। এর পরই বুঝা যাবে, এই অনধিকার প্রবেশের উদ্দেশ্য কী ছিল।’

তথ্যসূত্র : এনডিটিভি

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *