৪র্থ উন্নয়ন মেলা-২০১৮ এর শেষদিন ছিলো গতকাল শনিবার। মুন্সীগঞ্জে জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের মাঠ প্রাঙ্গনে অনুষ্ঠিত এই মেলায় গতকাল প্রদর্শণী করা হয় ভ্রামমাণ মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘর। মেলার মূল ফটকে পাশেই জাদুঘরটি প্রদর্শণী করা হয়। ব্যাতিক্রমী এই জাদুঘরটি দেখতে সকাল হতেই ভীর জমায় মেলায় আগত বিভিন্ন শ্রেনী পেশার মানুষ। সবচেয়ে বেশি উপস্থিতি দেখাযায় বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষাথীদের। উৎসুক শিক্ষার্থীরা ঘুরে জাদুঘরটি প্রর্দশণ করে।
ঢাকা আগারগাঁও অবস্থিত মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘরের ও মুক্তিযুদ্ধ মন্ত্রণালয়ের নিয়ন্ত্রণাধীন ট্রাস্টি বোর্ডের তত্ত্বাবধানে ভ্রাম্যমাণ মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘরটিতে, মুক্তিযোদ্ধের ১৫০টি ছবি, ৩২৫টির বেশির বিভিন্ন স্মারক, দলিলপত্র, মুক্তিযোদ্ধাদের ব্যবহৃত টর্চলাইট, বুলেট বেল্ট, বুলেট, খাবার প্লেট, দূরবীন, পানির পাত্র সহ বিভিন্ন জিনিস পত্র রাখা হয়েছে।
সরকারী এভিজেএম উচ্চ বিদ্যালয়ের নবম শ্রেণীর ছাত্রী শ্রাবন্তী জানান, প্রথমবার এই রকম জাদুঘর দেখলাম। মুক্তিযুদ্ধ সর্ম্পকে বইয়ে অনেক পরেছি। কাছ থেকে মুক্তিযুদ্ধাদের ব্যবহৃত বিভিন্ন জিনিস পত্র দেখলাম খুব ভালো লাগলো।
মুন্সীগঞ্জের সরকারী হরগঙ্গা কলেজের অর্নাস ২য় বর্ষের ছাত্র নিশাত জানান, অর্নাস ১ম বর্ষে স্বাধীন বাংলাদেশে অব্যদয়ের ইতিহাস নামের একটি বই ছিলো আমাদের । জাদুঘরটি ঘুরে মনে হলো সে বইটি সর্ম্পূনই উঠে এসেছে এখানে।
জাদুঘরের শিক্ষা কর্মসূচি সমন্বয় রনজিত কুমার দৈনিক মুন্সীগঞ্জের কাগজকে জানান, নতুন বর্তমান প্রজন্মের মাঝে মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস তুলে ধরতে মুক্তিযুদ্ধ মন্ত্রনালয় থেকে ভ্রাম্যমান জাদুঘরটি তৈরি করা হয়েছে। দেশের বিভিন্ন জেলায় বিভিন্ন সময় এর প্রদর্শণী করা হয়। উন্নয়ন মেলা উপলক্ষে মুন্সীগঞ্জে এর প্রদর্শণী করা হলো।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *